পুলিশের চাকুরীতে বদলে গেছে এসআই আকবরের পরিবার
২৪ অক্টোবর, ২০২০ ০৬:৪০ অপরাহ্ন

  

পুলিশের চাকুরীতে বদলে গেছে এসআই আকবরের পরিবার

এস এম টিপু চৌধুরী
১৭-১০-২০২০ ০৩:২১ অপরাহ্ন

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) বন্দরবাজার ফাঁড়িতে ‘পুলিশি নির্যাতনে’ রায়হান উদ্দিন নামে এক যুবকের মৃত্যুর ঘটনার পর এবার আলোচনায় ওই ফাঁড়ির বরখাস্থ হওয়া ইনচার্জ ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূইঁয়ার আলিশান বাড়ি।

 পুলিশেরে চাকুরী পর বদলে গেছে তার পরিবার। ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে এসআই আকবরের সেই আলিশান বাড়ির ছবি। একজন পুলিশের এসআই’র মতো ছোট পদে চাকরি করে কীভাবে ওই বাড়ি তৈরি করলেন সেটি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে।

জানা যায়, ২০০৩ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ উপজেলার দূর্গাপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক এবং ২০০৫ সালে উপজেলার ফিরোজ মিয়া ডিগ্রি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন আকবর। এরপর ২০০৭ সালে পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকুরি নেন তিনি। কয়েক বছর চাকরি করার পর উপ-পরিদর্শক (এসআই) পদে চাকরির জন্য পরীক্ষা দেন আকবর হোসেন ভূইঁয়া। পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এসআই পদে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকেই পাল্টে যেতে থাকে আকবর হোসেন ভূইঁয়া ও তার পরিবারের ভাগ্য।

পাঁচ ভাই-বোনের মধ্যে দ্বিতীয় আকবর হোসেন ভূইঁয়া। পুলিশে চাকরি পাওয়ার পর নিজ গ্রামে বাড়ি ও জায়গা-জমিসহ অঢেল সম্পদ গড়েছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। পুরনো ঘর ভেঙে নির্মাণ করা হয়েছে আলিশান বাড়ি। ইতোমধ্যে বাড়ির প্রথম তলার কাজ শেষ হয়েছে। এখন চলছে আধুনিক ফটক তৈরির কাজ। পুলিশে চাকরির বদৌলতে বাবার খোয়ানো সব সম্পদই যেন ফিরে এসেছে আকবরের হাত ধরে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) বন্দরবাজার ফাঁড়িতে ‘পুলিশি নির্যাতনে’ রায়হান আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় এখন নিজ গ্রামেও এখন আলোচনার কেন্দ্র বিন্দু আকবর। কীভাবে আলিশান বাড়িসহ সম্পদের মালিক হয়েছেন সেই আলোচনা এখন গ্রামের সবার মুখে। অনেকেই পুলিশ কর্মকর্তা আকবর ও তার পরিবারের অঢেল সম্পদের উৎস অনুসন্ধানের দাবি জানিয়েছেন। পুলিশ কর্মকর্তা আকবরের বাবা জাফর আলী ভূঁইয়া আন্দিদিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক ছিলেন। 

বগইর গ্রামের স্থানীয়রা জানান, পুলিশে চাকরি হওয়ার পরই অবৈধ ভাবে টাকা উপার্জন করে অঢেল সম্পদের মালিক হয়েছেন এসআই আকবর। তিনি যে ঘটনা ঘটিয়েছেন সেটি অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক এবং আশুগঞ্জে মানুষের জন্য কলঙ্ক। তাই আশুগঞ্জকে কলঙ্কমুক্ত করার জন্য বন্দর বাজার ফাঁড়ির ঘটনা সঠিকভাবে তদন্ত করে এসআই আকবরের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তারা।

তবে পুলিশ কর্মকর্তা আকবরের ছোট ভাই আরিফ ভূঁইয়া বলেন, আমরা বিশ্বাস করি আমার ভাই এ ধরণের কাজ কখনোই করতে পারে না। আমরাও চাই ঘটনাটি সুষ্ঠ তদন্ত হোক। আমার বিশ্বাস, আমার ভাই কখনো টাকার জন্য কাউকে মারতে পারে না। 

এই ব্যাপারে আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হানিফ মুন্সি বলেন, আকবর যে ঘটনা ঘটিয়েছেন। সেটি পুরো আশুগঞ্জে জন্য লজ্জাজনক। ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে আকবর যদি দোষী প্রমাণিত হয় তাহলে তাকে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য:

গত ১১ অক্টোবর সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে পুলিশ হেফাজতে রায়হান উদ্দিন নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়। তিনি সিলেট নগরের আখালিয়া নেহারিপাড়া এলাকার মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, রায়হানকে ধরে এনে টাকার জন্য নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। এই ঘটনায় বন্দরবাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ (এসআই) উপ-পরিদর্শক আকবর ভূইঁয়া সাময়িক বরখাস্থ করা হয়। এরপর থেকেই পলাতক রয়েছেন এসআই আকবর হোসেন ভূইঁয়া। 

 


এস এম টিপু চৌধুরী ১৭-১০-২০২০ ০৩:২১ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে
এবং 234 বার দেখা হয়েছে।

পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
Loading...
  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ প্রকাশিত

  

  ঠিকানা :   অনামিকা কনকর্ড টাওয়ার (তৃতীয় তলা),
বেগম রোকেয়া স্মরনী, শেওড়াপাড়া, মিরপুর, ঢাকা- ১২১৬
  মোবাইল :   ০১৭৭৯-১১৭৭৪৪
  ইমেল :   [email protected]